আমাদের সম্পর্কে

👉 আপনার কি হ্যাকিং শিখার প্রতি অনেক আগ্রহ ?

👉 কিন্তু অনেক আগ্রহ থাকা স্বত্বেও সঠিক দিক-নির্দেশনার অভাবে সামনে এগোতে পারছেন না ?

👉 টাকা দিয়ে কোনো প্রতিষ্ঠান বা ব্যাক্তির কাছ থেকে হ্যাকিং শিখার মতো সামর্থ্য নেই ?

তাহলে Master Of Hacking BD ( http://bangla.masterofhacking.com ) হচ্ছে আপনার জন্য উপযুক্ত প্ল্যাটফর্ম । এখানে আপনি ফ্রিতে হ্যাকিং সম্পর্কিত বিভিন্ন ধারাবাহিক টিউটোরিয়ালTips-Tricks,Ethical Hacking কোর্স সহ সব কিছুই পাবেন একদম ফ্রিতে।  আমাদের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য হচ্ছে এই ওয়েব সাইটটির মাধ্যমে প্রযুক্তি প্রেমী তরুণদের জন্য এমন একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা যেখানে হ্যাকিং শিখার জন্য বা সঠিক দিক-নির্দেশনার জন্য অতিরিক্ত কোনো টাকা খরচ করতে হবে না, কারো কাছে গিয়ে কোনো হেল্প চাইতে হবে না বা কারো কাছ থেকে কিছু শিখার আশায় বসে থাকতে হবে না । আর মূল কথা হচ্ছে হ্যাকিং বিষয়টি আসলে কেউ কাউকে শিখিয়ে দিতে পারে না । প্রকৃত পক্ষে নিজের শিখার প্রতি প্রচন্ড ইচ্ছাশক্তি এবং ধৈর্য থাকলেই কেবল আপনি একজন হ্যাকার হতে পারবেন। তবে আমাদের এই প্লাটফর্মটি যে শুধু মাত্র যে হ্যাকারদের জন্যই তা কিন্তু নয় । আপনার যদি হ্যাকিং শিখার কোনো ইচ্ছা না থাকে তবুও অনলাইনে নিজের নিরাপত্তা রক্ষার স্বার্থে হলেও আপনাকে হ্যাকিং সম্পর্কিত বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে হবে, বুজতে হবে। তা না হলে কখনোই আপনি অনলাইন দুনিয়ায় নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারবেন না। দিন দিন প্রযুক্তি যেমন দুরন্ত গতিতে সামনে অগ্রসর হচ্ছে তারই সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সাইবার হুমকিও । এই সাইবার হুমকি মুকাবেলায় অবশ্যই আপনাকে আগে এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে হবে এবং এই বিষয়গুলো ভালোভাবে বুজতে হবে তাহলেই কেবল আপনি এই সাইবার হুমকি মোকাবেলা করতে সক্ষম হবেন ।

অনেকেই হয়তো মনে মনে ভাবতে পারেন যে “হ্যাকিং” তো একটা খারাপ কাজ, তাহলে আপনি কেন এইভাবে সবার মাঝে এই খারাপ কাজটাকে উন্মুক্ত ভাবে তুলে ধরছেন ? তাতে করে সাইবার ক্রাইমের পরিমাণ বেড়ে যাবে না ? হ্যা, আপনার কথাটাই আমি মেনে নিলাম, আপনি ঠিকই বলছেন যে হ্যাকিং আসলেই একটি খারাপ কাজ । আচ্ছা একটি বিষয় ভেবে দেখুন তো যদি আমরা যদি এই “হ্যাকিং” শব্দটাকে খারাপ কাজ বলে প্রত্যাখ্যান করি তাহলে কি আদো এই প্রতিনিয়ত ক্রমবর্ধমান সাইবার হুমকি বা ক্রাইমের পরিমাণ কমে আসবে ? উত্তরটি হয়তো অবশ্যই “না” । তাহলে আপনার কাছে আমার প্রশ্ন, কেন আমরা “হ্যাকিং” বিষয়টাকে খারাপ বলে প্রত্যাখ্যান করবো ?

একটা ব্যাপার আপনাকে অবশ্যই মানতে হবে যে “হ্যাকিং” বিষয়টাকে অসৎ উদ্দেশ্যে ব্যবহার করে কারো ক্ষতি সাধন করাটা যেমন একধনের সাইবার ক্রাইম তেমনি হ্যাকিং এর বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে জেনে নিজের প্রাইভেসি বা নিরাপত্তা রক্ষায় সচেতন থাকাটাও কিন্তু কম কথা নয়। একজন মানুষ তখনই নিজের নিরাপত্তা সম্পর্কে সচেতন হতে পারবে যখন সে জানবে যে সে আসলে কিভাবে সাইবার ক্রাইমের শিকার হতে পারে ।

মূল কথা হচ্ছে প্রত্যেকটি জিনিসেই একটি খারাপ এবং একটি ভালো দিক রয়েছে। যেমনঃ- যেই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির অবদানে আমাদের জীবন যাত্রার মান এত উন্নত হয়েছে, যেই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কে কাজে লাগিয়ে  মানুষ পৃথিবীর সীমানা পেরিয়ে মহাকাশ জয় করতে পেরেছে সেই  বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কে কাজে লাগিয়েই কিন্তু সেই মানুষেরাই নিউক্লিয়ার বোমা তৈরী করে পৃথিবীটাকে ধংসের দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দিচ্ছে ।  তো একটা বিষয়কে আপনি কিভাবে নিবেন বা কিভাবে ব্যবহার করবেন সেটা আপনার একান্ত ব্যাক্তিগত ব্যাপার ।

আমাদের মূল উদ্দেশ্যই হচ্ছে মানুষের সামনে হ্যাকিং বিষয়টাকে উন্মুক্তভাবে তুলে ধরা । আর সব সময় আমরা একটা কথাই বলবো যে আপনারা যেন এই হ্যাকিংটাকে কোনো খারাপ উদ্দেশ্যে ব্যবহার না করে সব সময় যেনো চেস্টা করেন এই ব্যাপারটাকে কিভাবে ভালো কাজে ব্যবহার করা যায় । হয়তো আমাদের এই কার্যক্রমটা “সাইবার সিকিউরিটি” হিসেবেও নাম করন করা যেতো কিন্তু সাধারন মানুষের কাছে “হ্যাকিং” শব্দটার যতটা আকর্ষনীয় বা পরিচিত সে তুলনায় “সাইবার সিকিউরিটি” ব্যাপারটি অনেকটা দুর্বোধ্য ।

তো আশা করি নতুন নতুন হ্যাকিং সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয় জানতে আমাদের সাথেই থাকবেন😉
আপনাদের সহযোগিতা এবং অনুপ্রেরনাই হচ্ছে আমাদের সামনে এগিয়ে যাবার একমাত্র হাতিয়ার ।

সবাই ভালো থাকবেন এবং অবশ্যই “মাস্টার অফ হ্যাকিং” এর সাথেই থাকবেন । 🙂